আর অপেক্ষা নয়,রামমন্দির চাই : মোদী।

আর অপেক্ষা নয়,রামমন্দির চাই : মোদী

the magazine news hindunobobarta 23.03.2017.

1490272292887

প্রতিবেশী ডেস্ক : মুখে উন্নয়নের স্লোগান তুললেও নরেন্দ্র মোদীর দলের অন্যতম প্রধান এজেন্ডা অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ।

আর উত্তরপ্রদেশে বিজেপি বিপুল শক্তি নিয়ে ক্ষমতায় আসায় সেই এজেন্ডা সফল করার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে সঙ্ঘ-পরিবার তথা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। আগামী ৫ এপ্রিল রাম নবমীর দিন থেকেই শুরু হচ্ছে পরিষদের এই পর্যায়ের আন্দোলন।

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট রামমন্দির ইস্যুতে পর্যবেক্ষণ জানানোর পরে বৃহস্পতি ও শুক্রবার দিল্লিতে পরবর্তী কর্মসূচি ঠিক করতে বৈঠকে বসছে পরিষদ নেতৃত্ব।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আন্তর্জাতিক কার্যকরী সভাপতি প্রবীণ তোগাড়িয়ার নেতৃত্বে সেই বৈঠকে সব রাজ্যের নেতৃত্বকে যোগ দিতে বলা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহর মঙ্গলবার রামমন্দির মামলা প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘এর সঙ্গে দুই পক্ষের ভাবাবেগ জড়িয়ে রয়েছে। এই বিষয়টি বাদী-বিবাদী দু’পক্ষেরই সহমতের ভিত্তিতে সমাধান করা উচিত।

যদি কোর্টের বাইরে সমাধান না হয়, তখন সুপ্রিম কোর্ট তো আছেই।’ প্রয়োজনে তিনি নিজে মধ্যস্থতা করতে রাজি আছেন বলেও জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ অবশ্য আলোচনার মাধ্যমে সহমতের অপেক্ষা না করে আইন বদল করে রামমন্দির নির্মাণের দাবি জানিয়ে এসেছে বরাবর।

যদিও বিজেপি এখনও আলোচনাকেই গুরুত্ব দিতে চায়।এ দিন বিজেপির কট্টর হিন্দুত্ববাদী নেতা গিরিরাজ সিংহও বলেন, ‘আলোচনার পরিবেশ তৈরি করার জন্য সব রাজনৈতিক দলেরও এগিয়ে আসা উচিত।’

এর পাশাপাশি তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, ‘রামমন্দির কি ভারতে না হয়ে পাকিস্তানে বা বাংলাদেশে হবে?’ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষেরা সংখ্যাগুরুর ভাবাবেগকে সম্মান দেবেন বলেও আশা প্রকাশ করেছেন গিরিরাজ।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ অবশ্য, আলোচনায় নয়, রামমন্দির নির্মাণ করে ‘যুদ্ধ’ জয় চাইছে। ৪০০ বছরের বেশি সময় ধরে এই মন্দির-মসজিদ বিতর্কের অমীমাংসিত থেকেছে।

এ বার কেন্দ্র ও উত্তরপ্রদেশে বিজেপির সরকার গঠনের পরে মন্দির নির্মাণের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন পরিষদ নেতারা।

রামমন্দির আন্দোলনের একেবারে গোড়া থেকে যুক্ত থেকেছে গোরক্ষনাথ মঠ। পরিষদের আন্দোলনেও মার্গদর্শক মণ্ডলীর শীর্ষে ছিলেন মহন্ত অবৈদ্যনাথ। তাঁর শিষ্যই এখন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী।

আগামী দিনে বিজেপি রাজ্যসভায় শক্তি অর্জন করলে সংসদে আইন পাশ করেই রামমন্দির নির্মাণ সম্ভব বলে মনে করেছেন তোগাড়িয়ারা।এখন থেকেই তাই মোদী এবং যোগীর উপরে চাপ তৈরি করার পরিকল্পনা নিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

পরিষদের পূর্ব ক্ষেত্রের সংগঠন সম্পাদক শচীন সিংহ এবেলা ওয়েবসাইটকে বলেন, ‘সরকারকে চাপ দেওয়ার কোনও প্রশ্ন নেই। কেন্দ্রীয় সরকার বা উত্তরপ্রদেশ সরকারের এই ব্যাপারে উদ্যোগী হওয়াটা দায়িত্ব বলে আমরা মনে করি।’

আগামী কর্মসূচি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘১৯৯০ সালে রামশিলা পূজন, করসেবা কিংবা ’৯২ সালে যে আন্দোলন হয় সে সম্পর্কে বর্তমান প্রজন্ম সবটা জানে না।

কত মানুষ সেই সময়ে আত্মত্যাগ করেছেন, রামমন্দির নির্মাণ কেন সমাজের জন্য প্রয়োজন— সে সব বর্তমান প্রজন্মকে জানানোই প্রথম কাজ। রাম নবমীর দিন থেকে গোটা দেশে শুরু হবে প্রচারাভিযান। এর পরের কর্মসূচি ঠিক হবে শীঘ্রই।’

২৫ বছর আগে ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর উত্তরপ্রদেশ-সহ গোটা দেশে ঠিক কী হয়েছিল, তা মনে করানোর মধ্য দিয়ে ফের ধর্ম নিয়ে উত্তেজনা তৈরি করতে চাইছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

তাতে নরেন্দ্র মোদীকেও প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে। উত্তরপ্রদেশে মুখ্যমন্ত্রী বাছাইয়ের ক্ষেত্রেই বোঝা গিয়েছে সঙ্ঘ পরিবারের নিয়ন্ত্রণেই রয়েছেন মোদী।এ বার প্রশ্ন, তিনিও কি এই মন্দির রাজনীতিকে প্রশ্রয় দেবেন ও অংশ নেবেন, নাকি উন্নয়নের স্লোগানকেই সামনে রাখবেন?

the magazine news hindunobobarta 23.03.2017.

সুত্র : এবেলা

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s