বিজেপির হাতেই মমতার পতন: উমা ভরতী।

বিজেপির হাতেই মমতার পতন: উমা ভরতী।

1492231516190

“মমতাকে তৈরি করার পিছনে বিজেপিরই যোগদান ছিল। আজ মমতাকে শেষ করার কাজও বিজেপি করবে। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে সেই কাজই করে দেখাবে বিজেপি”। শুক্রবার সকালে রাজধানী এক্সপ্রেসে হাওড়া পৌঁছে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে এ মন্তব্য করলেন কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী উমা ভারতী।
তিনি বলেন, “আগে অসম, হরিয়ানায় আমাদের একজন করে প্রার্থী জিততেন। আর এখন আমরা সেখানে সরকার গঠন করেছি। আগামী দিনে বাংলাতেও পরিচ্ছন্ন সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে আমরা সরকার গঠন করব। ২০২১ সালে সেই বিজেপি সরকার মমতার বিকল্প হিসাবে সরকার বানাবে”।

এদিন বেলা ১১-১০ মিনিটে ডাউন রাজধানী এক্সপ্রেসে হাওড়া স্টেশনে এসে পৌঁছন তিনি। দলীয় নেতৃবর্গ তাঁকে পুষ্পস্তবকে স্বাগত জানান। হাওড়া স্টেশনে সাংবাদিকদের তিনি বলেন,তিস্তা চুক্তির বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকা পুরোপুরি ইতিবাচক। সবদিক বিবেচনা করেই এনিয়ে নেওয়া হবে। এরপর দুপুরে এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হাওড়ার শরৎ সদনে ভারতীয় জনতা পার্টি হাওড়া জেলা সদরের নেতৃত্ব, পদাধিকারী, এবং প্রবুদ্ধ ব্যক্তিদের নিয়ে এক রুদ্ধদ্বার সম্মেলন করেন। ঘন্টাখানেক পর সম্মেলন শেষ করে উমা ভারতী সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। তিনি কার্যত এরাজ্যের আইনশৃঙ্খলা ইস্যুতে মমতার সরকারকে একহাত নেন।
কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী বলেন, “এখানে বাংলায় মমতা উন্নয়নের রাজনীতি না করে হিংসার রাজনীতি করছে।এরফলে বাংলার আইএএস, আইপিএস অফিসারদের উন্নয়নের সাধারণ ধারণা হারিয়ে গেছে। আইনশৃঙ্খলা ঠিক রাখার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছেন তাঁরা। কর্মদক্ষতা হারিয়ে ফেলেছেন। এরফলে বাংলার আজ খুব খারাপ অবস্থা। দলীয় কর্মকর্তাদের সেই কথাই বলেছি যে বাংলাকে তৈরি করতে হবে।বাংলাকে বাঁচাতে হবে। এবং তার প্রস্তুতি শুরু করে দিন। রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছেন”।

এদিন যোগেশ ভার্সানে প্রসঙ্গে উমা ভারতী বলেন, “আমি এই ঘটনার ঘোরতর নিন্দা করছি। দলও এই ঘটনায় ওই ব্যক্তিকে সাথ দিচ্ছে না”।

উন্নয়নের রাজনীতি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে উমা ভারতী বলেন, “কেন্দ্রের যোজনাগুলিতে সাধারণ মানুষ লাভ পাচ্ছেন না।রাজ্য সরকার তার দফরের যেসব প্রোজেক্ট কেন্দ্রের কাছে পাঠাচ্ছে সেগুলি খুবই ত্রুটিপূর্ণ। তিনি নিজে সেচ যোজনা নিয়ে খুবই চিন্তায় আছেন। কারণ রাজ্য সরকার যে প্রোজেক্ট কেন্দ্রের কাছে পাঠিয়েছে তাতেও অনেক গাফিলতি রয়েছে। এত অসম্পূর্ণ প্রোজেক্ট পাঠিয়েছে বলে সেই প্রজেক্ট দেখে টাকা রিলিজ করাই যাচ্ছে না”।
অস্ত্র নিয়ে মিছিল প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, “অস্ত্র মিছিলে সাম্প্রদায়িক সৌহার্দ্য কখনই নষ্ট হয়না। এ রাজ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কেউ যদি নষ্ট করতে চায় তা হল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুলিশ চাইলে ভালোভাবে আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পারে। আগেও এ ধরণের র‍্যালি হয়েছে। পুলিশ চাইলে সুষ্ঠভাবে র‍্যালি পরিচালনা করতেই পারে। জেনে বুঝেই এনিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে। হাতিয়ার নিয়ে যদি কাউকে মারার জন্যে যদি র‍্যালি বের হয় তাহলে সেটা নিশ্চয়ই অপরাধ। কিন্তু যদি আমাদের দেশের ধর্মীয় পরম্পরা মেনে যদি র‍্যালি হয় তাতে অসুবিধে নেই”।

তিস্তা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে উমা ভারতী বলেন,” তিস্তা নিয়ে এখন সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তিস্তা নিয়ে মমতা যে খুশি নয় সে প্রসঙ্গে বলেন, মমতা তো কোনও বিষয়েই খুশি থাকে না। তিনি আরও বলেন, রাজ্যসভা ও লোকসভাতেও তিস্তা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। সেক্ষেত্রে রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গেও আলোচনা করে এ বিষয়ে সমাধান বার করা হবে। সেন্ট্রাল ওয়াটার কমিশনের মাধ্যমে সমস্ত রাজ্য সরকারের কাছে খবর পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে যে কোনও রাজ্যে পানীয় জলের সঙ্কট হলে আমাদের জানান। কেন্দ্র সে বিষয়ে পুরো সহযোগিতা করবে। কেন্দ্র কোনওভাবেই পানীয় জলের সঙ্কট চায় না”। এদিকে, শরৎ সদনে দলীয় সম্মেলন সেরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সাঁকরাইলের সভার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যান।

হিন্দু নববার্তা ম্যাগাজিঙ নিউজ ১৫.০৪.২০১৭.

ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s